ভালোবাসার দায়িত্ব কি ? মেসির কাছ থেকে শেখেন সাকিব

বাংলাদেশের ক্রিকেট তারকা সাকিব আল হাসান অন্যদিকে লিওনেল মেসি ফুটবলের অনেক বড় তারকা। দু’জনেই যার যার খেলা দিয়ে বিশ্বের কোটি ভক্তের মন জয় করে নিয়েছেন।
শত ব্যস্ততা কাটিয়েও দু’জনেই পুরোদম সংসারী ও বটে। উভয়েই যার যার পরিবারকে অনেক ভালোবাসেন। পরিবারকে যথেষ্ট সময় দিচ্ছেন সকল সদস্যদের সাথে সুখ দুঃখ গুলো ভাগাভাগি করে নিচ্ছেন। 


লিওনেল মেসির দারুণ ভক্ত সাকিব আল হাসান—তথ্যটা অনেক পুরোনো। মেসির খেলা থাকলে তিনি হয়ে যান নিখাদ একজন ভক্ত, যিনি প্রত্যাশার পারদ ছড়িয়ে কায়োমনবাক্যে প্রার্থনা করেন প্রিয় খেলোয়াড়ের সাফল্যের। তবে আর্জেন্টাইন তারকা যে তাঁর কাছে বিরাট এক প্রেরণার নাম, বড় এক উদাহরণের নাম, সেটি জানালেন বিখ্যাত ক্রিকেট ধারাভাষ্যকার হার্শা ভোগলের সঙ্গে এক অনলাইন আড্ডায়।


বাংলাদেশের ক্রিকেটের বড় তারকা সাকিব। হার্শা টানলেন এ উপমহাদেশে ভক্ত–বন্দনার বিভিন্ন উদাহরণ। শচীন টেন্ডুলকারকে কিংবা সৌরভ গাঙ্গুলী। কলকাতায় সৌরভ রীতিমতো অন্য জগতের কেউ। বাংলাদেশের সাকিবের ক্ষেত্রেও কি ব্যাপারটা একই—জানতে চেয়েছিলেন হার্শা। সেই সঙ্গে সাকিবের কাছে এই ব্যাপারটা কেমন—এটাও জিজ্ঞেস করলেন তিনি। সাকিবের কাছে ভক্তরা সব সময়ই রীতিমতো 'দায়িত্ব'। তার তাঁর অনুপ্রেরণাও। প্রত্যাশার বিশাল চাপ তো আছেই। তবে সাকিব এসব সামলাতে মেসিকে দেখে উপায় খোঁজেন, 'এটা অনেক বড় দায়িত্বের ব্যাপার। ভক্তদের প্রত্যাশাও থাকে অনেক। তবে এটা আমাকে প্রেরণা দেয়।'


এর পরপরই ভক্ত হিসেবে মেসির কাছে নিজের প্রত্যাশার উদাহরণটি দিলেন সাকিব, 'আমি মেসির ভক্ত। আমি যখন তাঁর খেলা দেখি, তখন অনেক প্রত্যাশা নিয়ে দেখি। যখনই সে খারাপ খেলে, আমার মনে হয়, মেসি কেন ভালো খেলতে পারছে না!'


ভক্ত হিসেবে মেসির প্রতি নিজের মনোভাবটাই যে খেলোয়াড় হিসেবে তাঁর বেলাতেও খাটে, সেটিই মনে করে সাহস নেন তিনি। মোটকথা মেসির জায়গায় নিজেকে বসিয়েই সাকিব নিতে চান প্রেরণা, 'আমি মনে করি, ঠিক এভাবেই দেশের মানুষ চায় আমি সব সময় ভালো খেলি। আমি খারাপ খেললেও দেশের মানুষ সেভাবেই চিন্তা করে যেভাবে মেসি খারাপ খেললে আমি চিন্তা করি। এভাবেই আমি অনুপ্রেরণা নিই। আমি এটাকে ইতিবাচকভাবেই দেখি। ভক্তদের আকাশচুম্বী প্রত্যাশাই আমাকে উজ্জীবিত রাখে।'

Post a Comment

0 Comments