করোনা ভ্যাক্সিনের বড় সুখবর আসতে পারে খুবই দ্রুত

দয়াময় রাব্বুল আলামীনের অশেষ করুনায় অতি দ্রুত করোনা মহামারীর ভ্যাক্সিন চলে আসতে পারে। করোনা মহামারীর শুরু হতেই লন্ডনের বিখ্যাত বিশ্ববিদ্যালয় অক্সফোর্ড ভ্যাক্সিন আবিষ্কারের জন্য অনেক পরীক্ষা চালায়।


কিন্তু সর্বশেষ তৃতীয় ধাপের পরীক্ষায় ও সফল হয়েছে বিশ্ববিদ্যালয়টি। 

কীভাবে তৈরি হয়েছে এই ভ্যাকসিন?

শিম্পাঞ্জির শরীর থেকে নেয়া অ্যাডেনোভাইরাসকে ল্যাবে এমনভাবে নিষ্ক্রিয় করা হয়েছে যাতে মানুষের শরীরে কোনো ক্ষতিকর প্রভাব ফেলতে না পারে। এরপর, সার্স-কভ-২ ভাইরাসের কাঁটার মতো অংশ অর্থাৎ স্পাইক গ্লাইকোপ্রোটিনগুলোকে আলাদা করা হয়েছে। এই ভাইরাল প্রোটিন আগে থেকে নিষ্ক্রিয় করে রাখা অ্যাডেনোভাইরাসের মধ্যে ঢুকিয়ে ভ্যাকসিন ক্যানডিডেট ডিজাইন করা হয়েছে। এখন ভ্যাকসিন ইনজেক্ট করলে এই বাহক ভাইরাস অর্থাৎ অ্যাডেনোভাইরাস করোনার স্পাইক প্রোটিনগুলোকে সঙ্গে করে নিয়েই মানুষের শরীরে ঢুকবে। 

দেহকোষ তখন এই ভাইরাল প্রোটিনের উপস্থিতি বুঝতে পেরে তার প্রতিরোধী অ্যান্টিবডি তৈরি করবে। সেই সঙ্গে দেহকোষের টি-সেল (T-Cell) গুলোকে উদ্দীপিত করবে। এই টি-সেলের কাজ হল বাইরে থেকে শরীরে ঢোকা ভাইরাল অ্যান্টিজেনগুলিকে নিষ্ক্রিয় করে দেয়।

Post a Comment

0 Comments