সুবর্ণচরের স্বর্ণদ্বীপে অবমুক্ত হলো শতাধিক বক

নোয়াখালীর সুবর্ণচরে খোলা বাজারে বিক্রি করার সময় প্রায় শতাধিক ‘বক’ পাখি উদ্ধার করা হয়। গত ১০ দিন লালন পালন করে বকগুলোকে সুস্থ করে আবারো স্বর্ণদ্বীপের বনাঞ্চলে অবমুক্ত করে দেয়া হয়েছে। 

শুক্রবার (৩ জুলাই) দুপুর ১টার দিকে উপজেলা বন বিভাগের সহযোগিতায় স্বর্ণদ্বীপে বকগুলো অবমুক্ত করা হয়। 

জানা গেছে, একটি চক্র গত ২৩ জুন নোয়াখালীর সর্বদক্ষিণে অবস্থিত স্বর্ণদ্বীপ থেকে ধবল বকের ডিম ফুটে বের হওয়া বাচ্চাগুলোকে চুরি করে জেলার সুবর্ণচর উপজেলার ছমিরহাট বাজার ও চরক্লার্ক বাংলাবাজারে বিক্রির জন্য নিয়ে আসে। বিষয়টি স্থানীয় জনতা উপকূলীয় পরিবেশ রক্ষা আন্দোলনের সমন্বয়ক ও স্থানীয় সংবাদকর্মী আবদুল বারী বাবলু’কে জানায়। খবর পেয়ে সাংবাদিক আবদুল বারী বাবলু স্থানীয় পরিবেশ রক্ষা কর্মী জহির উদ্দীন তুহিনকে সাথে নিয়ে দ্রুত ঘটনাস্থলে পৌঁছে প্রায় শতাধিক বকের বাচ্চা উদ্ধার করেন। 

সাংবাদিক আবদুল বারী বাবলু জানান, বিষয়টি সুবর্ণচর উপজেলা প্রশাসন ও উপজেলা বন কর্মকর্তাকে জানানো হলে বনরক্ষী পাঠিয়ে পাখিগুলো নেওয়া হয়। পরে স্থানীয় এক কৃষকের নিকট বকের বাচ্চাগুলোকে সবল হয়ে উড়ে যাওয়া পর্যন্ত পালন করার জন্য জিম্মায় রাখা হয়।

বকপাখিদের ছোট কাঁচকি মাছ প্রতিদিন ৫ কেজি করে পাখির খাবার খরচ হিসেবে উপজেলা নির্বাহী অফিসার এএসএম ইবনুল হাসান ইভেন ও স্থানীয় উপকূল পরিবেশ রক্ষা আন্দোলন বহন করে।

বাবলু আরও বলেন, ২৪ জুন থেকে ৩ জুলাই  ১০দিন লালন পালন শেষে শুক্রবার উপজেলা নির্বাহী অফিসারের অনুরোধে উপজেলা বন কর্মকর্তা ও রেঞ্জ কর্মকর্তারা দুপুর ১টায় স্বর্ণদ্বীপে প্রাকৃতিক অভয়ারণ্যে বক পাখির বাচ্চা গুলো অবমুক্ত করা হয়।

সুবর্ণচর উপজেলা নির্বাহী অফিসার ইবনুল হাসান ইভেন বলেন, স্থানীয় গণমাধ্যম কর্মী ও উপকূলীয় পরিবেশ রক্ষা আন্দোলনের সমন্বয়ক আবদুল বারী বাবলুর সহযোগিতা বকগুলো আমরা উদ্ধার করে স্বর্ণদ্বীপে অবমুক্ত করি। 

Post a Comment

0 Comments