লক ডাউনে বাড়িতে থেকে মাছ চাষে আগ্রহী হয়ে উঠছে মতলবের তরুনরা



বর্ষার মৌসুমের আগমন ঘটেছে আরো বেশ কিছুদিন আগেই। বর্ষার নতুন পানিতে টইটম্বুর মতলবের জলাশয় গুলো সাথে বৃষ্টির পানি তো আছেই।


খোজ নিয়ে জানা যায় করোনা ভাইরাসের কারনে দীর্ঘ দিন নিজ বাসায় অবস্হান করছে মতলবের বেশিরভাগ তরুনরা। কিন্তু অধিকাংশ তরুনরাই এই অবসর সময় নষ্ট না করে বাড়ির আশেপাশের জলাশয় গুলোতে মাছ চাষ করছেন।

মতলব দক্ষিন ও উত্তরের বিভিন্ন স্হানে ঘুরে দেখা যায় অনেক তরুনরা কেউ একক ভাবে আবার কেউ সম্মিলিত ভাবে বাড়ির পাশের জলাশয় গুলোতে মাছ চাষ করছেন।

যা খুবই একটি সম্ভাবনাময়ী উদ্যোগ। ছোট হলেও তরুনদের এই ধরনের উদ্যোগে বেশ খুশি তরুনদের অভিভাবকরা।

যেহেতু বর্ষার কারনে মতলবের অধিকাংশ জলাশয়গুলো পানিতে পরিপূর্ণ হয়েছে তাই জলাশয়ে বিভিন্ন মাছের পোনা ছাড়তে শুরু করেছে তরুনরা।

পোনা বিক্রেতারা জানান এবার পোনার চাহিদা বিভিন্ন জায়গা হতে অর্ডার পাচ্ছেন তারা। বিক্রেতারাও পোনা দিচ্ছেন ক্রেতাদের।

তবে তেলাপিয়া, গ্রাস কার্প, কার্ফু মাছের পোনার চাহিদা বেশি থাকলেও সরপুটি, শিং, পাঙ্গাশ, কই মাছও বিক্রি হচ্ছে।

কম করে হলেও আড়াই থেকে তিন মাস এই জলাশয় গুলোতে পানি থাকবে। সুষম খাবার প্রদান আর সঠিক পরিচর্যা পেলে এই অল্প সময়েই মাছ গুলো বেড়ে উঠবে। 

এই ধরনের ছোট উদ্যোগ তরুনদের সামনে বিভিন্ন ভাবে সহায়তা করবে বলে আশাবাদ জানান এক যুবক। তিনি জানান আমাদের এখানে তিনটি জলাশয় থাকলেও দুটিতেই মাছ চাষ করছে তরুনরা। অথচ আগে এগুলো খালি পড়ে থাকতো।

এই যুবক আরো জানান এই ধরনের ছোট উদ্যোগ ভবিষ্যৎ এ তাদের বড় উদ্যোগ নিতে সহায়তা করবে যা তরুনদের নিজের পায়ে দ্বারাতে অনেক সাহায্য করবে। উদ্যোগী হলে তরুনরা সমাজের বর্তমান অবস্হার উন্নতি হবে।

তিনি আরো বলেন এই অবসর সময়ে বসে না থেকে তরুনদের উচিত ছোট উদ্যোগ নেয়া যা তাকে সাবলম্বী হওয়ার পাশাপাশি পরিবার ও দেশের উন্নয়নে সহায়তা করবে।

Post a Comment

0 Comments