মতলবের বিভিন্ন গ্রামে রাতের অন্ধকারে সক্রিয় হচ্ছে চোর চক্র

প্রতিদিন মতলবের বিভিন্ন গ্রামে রাতের অন্ধকার নেমে আসলে মধ্য রাতে চোরের চক্রটি গ্রাম গুলোতে ডুকে পড়ে এরং মধ্য রাতে চোরের চুরি করা কৌশল প্রয়োগ করে টাকা,স্বর্ন-অলঙ্কার,মোবাইল সহ প্রয়োজনীয় জিনিস নিয়ে যাচ্ছে।এতে করে মানুষের মনে আতঙ্কের সৃষ্টি হয়ে পড়ছে এবং অনেক পরিবার ক্ষতির সমুক্ষিন হচ্ছে তার সাথে জীবনের নিরাপত্তাহীনতায় ভুগছে অনেকেই।



 


শুধু হিন কাটাই নয় এই চক্রটি এতোটাই ভয়ানক হয়ে উঠেছে যে অটোরিকশামোটরসাইকেল চুরি করাও তাদের হাত থেকে বাদযায়নি। মতলব উত্তরের হাজীপুরমীরপুর তপদারপাড়া,সরদারকান্দি,বালুচর,ঠাকুরপাড়া,কলাকান্দা,গাজীপুর সহ অনেক গ্রামে চুরি হয়ে আসছে বলে ভুক্ত ভোগীরা জানান।


অটোরিকশা চালক হাসেম জানান,তিনি অনেক কষ্ট করে এনজিও থেকে টাকা উঠিয়ে অটোরিকশা ক্রয় করেন।এটাই ছিল তাররুজি রোজগারের একমাত্র অবলম্বন। প্রতিদিনের মতো অটোরিকশাটি রেখে ঘুমাতে যাই কিন্তু সকালে উঠে দেখি আমার গাড়িটিনেই।কিস্তির টাকা এখনো পরিশোধ করা হয়নি এখন পরিবার পরিজন নিয়ে কিভাবে চলবো তা আল্লাহ ভালো জানেন।চুরিহওয়ার পরে থানাতে অভিযোগ পত্র লিখিতভাবে জানাই।আমার একটাই দাবি এই চোর চক্রটিকে যাতে দ্রুত ধরা যায় আরআমার মতো কোন অসহায় মানুষ যেনো ক্ষতির সমুক্ষিন না হয়।


চক্রটির চুরি করার কৌশল এতোটাই নিখুঁত যার কারনে তাদের ধরতে না পারার কারনে কোন আইনি পদক্ষেপ নেওয়া যাচ্ছেনা।ভুক্তভোগী পরিবার গুলো প্রশাসনের দৃষ্টি আকর্ষন করে বলেন এই চক্রটি যদি ধরতে না পারা যায় তাহলে জনমনে আতঙ্কথেকেই যাবে তাই তাদের ধরতে যেকোন আইনি পদক্ষেপ গ্রহন করার আহব্বান জানান।


উল্লেখ্য জনমনে এতটাই আতঙ্কের সৃষ্টি হয়েছে যে এই চক্রটি ধরতে না পাড়লে আরো পরিবারের ক্ষতি হবে বলে আশঙ্কা করাহচ্ছে। যেহেতু বর্তমানে ঈদের একটি সময় অনেক গরুর ব্যাবসায়িরা আতঙ্কিত যেকোন মুহূর্তে গরু চুরি হতে পারে বলে আশঙ্কাকরছেন কারন পূর্বেও তারা এই ধরনের সমস্যার সম্মুখীন হয়েছেন এবং আর্থিক ক্ষতিতে পড়েছেন।


তাই মতলব বাসীর একটাই দাবি যাতে এই চোরের চক্রটিকে যত দ্রুত সম্ভব আইনের আওতায় আনা হোক এবং তাদের বিরুদ্ধেব্যবস্থা নেওয়ার জোড় দাবি জানান।

Post a Comment

0 Comments