করোনাকালে ছাদ কৃষি, আসবে টাকা মিলবে পুষ্টি

গাছ লাগানোর ভালো লাগা থেকে ছাদ বাগানে কৃষি খামার করে ব্যাপক সফলতা পেয়েছেন বরিশাল মেট্রোপলিটন পুলিশের উপ-পুলিশ কমিশনার (উত্তর) মো. খাইরুল আলমের স্ত্রী দিলরুবা আলম। সবাই ছাদের জায়গাটুকু সঠিক ব্যবহার করতে পারলে পুষ্টির কোন অভাব থাকবে না। কৃষিক্ষেত্রে প্রতিটা মানুষ এগিয়ে আসলে দেশ আরও স্বনির্ভর হবে।

বৃক্ষপ্রেমী পুলিশ পত্মী দিলরুবা আলম জানান, শৈশব থেকে গাছের প্রতি ভালো লাগা থেকে বৃক্ষরোপণ শুরু করি। বিয়ের আগে বাবার বাড়ির ছাদে সবজী, ফল ও ফুলের গাছ লাগিয়ে সফলতা পেয়েছি। স্বামীর সংসারে এসেও সেই ধারাটি অব্যাহত রেখেছি। স্বামীর চাকরির সুবাদে যেখানেই পোস্টিং হয়েছে সেখানেই ছাদ কৃষি করেছি। বরিশালে এসেও স্বামী খাইরুল আলমের সহযোগিতায় ছাদ কৃষি করতে সক্ষম হয়েছি। 

বতর্মানে তার ছাদ কৃষির তালিকায় রয়েছে ড্রাগন, আম, জাম, পেয়ারা, আনারস, আঙ্গুর, আখ, লেবু, বেগুন, চাল কুমড়া, লালশাক, পুদিনা, ধনেপাতা, বনসাই, বাশ, এলোভেরা, তুলশিসহ নানা প্রজাতির ফলজ ও ঔষধি গাছ। এছাড়াও তার সংগ্রহের তালিকায় রয়েছে নাইট কুইন, কেকটাসসহ ৬২ প্রজাতির বাহারি ফুলের গাছ। পরিবারের পাশাপাশি ছাদ বাগান পরিচর্যা করেই প্রকৃতির সাথে মিশে আছি। 

ছাদ বাগানের ড্রাগন ফল সংগ্রহ করার কথা জানিয়ে তিনি বলেন, এটা চাষ করা খুবই সহজ। যেহেতু আমরা বিধাতা প্রদত্ত সোনার মাটি পেয়েছি তাই এ মাটির সঠিক ব্যবহার করতে পারলে আমাদের খাদ্য ও পুষ্টির কোন অভাব থাকবেনা। কৃষি ক্ষেত্রে প্রতিটা মানুষ এগিয়ে আসলে দেশ আরও স্বনির্ভর হবে বলেও তিনি মনে করেন। 

বরিশাল মেট্রাপলিটন পুলিশের উপ-পুলিশ কমিশনার (উত্তর) খাইরুল আলম জানান, লকডাউনের সময় তার স্ত্রীর ছাদ বাগান থেকেই বেশির ভাগ শাকসবজি সংগ্রহ করেছেন। নিজেদের চাহিদা পূরন করে অন্যদের চাহিদাও পূরণ করা হচ্ছে। 

বরিশাল রহমতপুর কৃষি কলেজের উপাধ্যক্ষ মো. নজরুল ইসলাম জানান, শহরের বাসিন্দারা ভবনের ছাদে নিরাপদ ফল ও সবজি উৎপাদন করে স্বাচ্ছন্দেই নিজের চাহিদাপূরনের পাশাপাশি কৃষিতে অবদান রাখতে পারেন। এছাড়াও ফুল চাষ করে প্রাকৃতিক পরিবেশ ও মনোমুগ্ধকর দৃশ্য উপভোগ করার সুযোগ রয়েছে। সরকার ছাদ কৃষির বিষয়ে কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তরের মাধ্যমে মানুষকে ব্যাপকভাবে সচেতন করছে বলেও তিনি উল্লেখ করেন।

Post a Comment

0 Comments