মতলবে সরকারী চাল আনতে গিয়ে চেয়ারম্যানের হাতে হামলার শিকার অসহায় ঝালমুড়ি বিক্রেতা

চাঁদপুরের মতলব দক্ষিণ উপজেলার ৫নং উপাদী উত্তর ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান শহিদ উল্লাহ প্রধানের কাছে সরকারী চাউল চাইতে গিয়ে চেয়ারম্যান কর্তৃক মারধরের শিকার হয়েছেন এক ঝালমুড়ি বিক্রেতা। ঈদের আগের দিন (৩১ জুলাই) মতলবের তিতারভিটা সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয় প্রাঙ্গণে এ ঘটনা ঘটে। আহত ঝালমুড়ি বিক্রেতা এখন হাসপাতালে চিকিৎসাধীন আছেন।

ঝালমুড়ি বিক্রেতার নাম মানিক মিয়া। তাঁর বাড়ি উপাদী উত্তর ইউনিয়নের ৯নং ওয়ার্ড (উপাদী গ্রামে) তাঁর পিতার নাম তাজুল ইসলাম। মানিক মিয়া অভিযোগ করেন, গত শুক্রবার দুপুরে তিনি উপজেলার তিতারভিটা সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের মাঠে যান। সেখানে গিয়ে ইউপি চেয়ারম্যান শহিদ উল্লাহ প্রধানের কাছে ইদের বিশেষ বরাদ্ধের ভিজিএফের কিছু চাউল চাইলে তিনি চাউল দিতে অপারগতা প্রকাশ করেন। এ নিয়ে তাঁদের মধ্যে কথা-কাটাকাটি হয়। একপর্যায়ে ইউপি চেয়ারম্যান শহিদ উল্লাহ প্রধান ক্ষিপ্ত হয়ে তাঁর কোমরে বেশ কয়েকটি লাথি মারেন। এতে করে তিনি মাটিতে লুটিয়ে পড়েন চেয়ারম্যানের হুমকি-ধামকিতে বিষয়টি চেপে যান এবং কিছুক্ষণ পরে চাউল না পেয়ে বাড়িতে চলে যান। কোমরের ব্যথা সহ্য করতে না পেরে (৫ আগস্ট) বুধবার সকালে মতলব দক্ষিণ উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তি হন। সেখানে তাঁর কোমরের এক্স-রে করানো হয়। তীব্র ব্যথা নিয়ে হাসপাতালে কাতরাচ্ছেন ঝালমুড়ি বিক্রেতা মানিক। (৫ আগস্ট) দুপুরে বিষয়টি মতলব দক্ষিণ থানা পুলিশকে জানিয়েছেন মানিক। সুস্থ হওয়ার পর থানায় মামলা করবেন।

চেয়ারম্যান অনেক লোকের সামনে উদ্দেশ্যমূলকভাবে তাঁকে মারধর করেন। লাথি মেরে তাঁর কোমর ও কোমরের হাড় থেঁতলা করে দেওয়া হয়েছে। এখন তিনি সোজা হয়ে দাঁড়াতে পারছেন না। তিনি একজন সামান্য ঝালমুড়ি বিক্রেতা। প্রতিদিন মুড়ি বিক্রি করে যা আয় করেন তা দিয়েই তার সংসারের খরচ চালিয়ে আসছেন। এখন কোমর থেঁতলে যাওয়ায় সব কাজকর্ম বন্ধ। পরিবারের সদস্যরা খেয়ে না খেয়ে কোনো রকম দিন কাটাচ্ছেন। ঘটনাটি তদন্ত করে ওই চেয়ারম্যানের দৃষ্টান্তমূলক শাস্তির দাবি করেন তিনি।
অভিযোগ অস্বীকার করে ইউপি চেয়ারম্যান শহিদ উল্লাহ প্রধান জানান, তিনি ওই ঝালমুড়ি বিক্রেতাকে ভিজিএফের চাল দিয়ে বিদায় করে দিয়েছেন। কোনো প্রকার মারধর করেননি। মারধরের অভিযোগটি ভিত্তিহীন। এটি তাঁর বিরুদ্ধে একটি ষড়যন্ত্র। তাঁর রাজনৈতিক প্রতিপক্ষরা এ ঘটনা সাজিয়ে বলে তিনি মনে করেন।

Post a Comment

0 Comments