তিস্তার ভাঙনে দিশেহারা সুখি বেগম সহ আরো অনেকে

 সুখি বেগমের বিয়ে হয়েছে ৩০ বছর আগে। এই সংসার জীবনে তাকে ২৮ বার নদীভাঙনের শিকার হয়ে বসতভিটা হারাতে হয়েছে। বার বার বাড়ি-ঘর সরাতে গিয়ে দারিদ্রের কষাঘাতে তাকে শুধু বিষন্ন থাকতে হচ্ছে সর্বদাই।


‘মুই আর কতবার বাড়ি ভাঙিম, বাড়ি ভাঙতে ভাঙতে মোর সোগে শ্যাষ হয়া গ্যালো। এ্যালো মুই পথে ভিখারি হয়া গ্যানু,’ কেঁদে কেঁদে এভাবেই কথাগুলো বলছিলেন তিস্তাপাড়ের সুখি বেগম (৪৮)।

‘হামার কী না আছিল। সোগে আছিল। বাড়ি ভিটা, আবাদি জমি, ফলের বাগান, গোয়াল ঘর, গাছ-পালা সোগকিছুই। এ্যালা হামার কিছুই নাই। সোগে গ্যাইছে তিস্তার প্যাটোত। হামরা এ্যালা খাবারে পাবার নাগছি না,’ এমনি করে জানালেন সুখি বেগম।

লালমনিরহাটের আদিতমারী উপজেলার মহিষখোঁচা ইউনিয়নে তিস্তাপাড়ের দক্ষিণ বালাপাড়া গ্রামের বাসিন্দা সুখি বেগম। স্বামী আব্দুস সামাদ একজন কৃষক। তার বসতভিটা তিস্তা গর্ভে চলে গেছে। বাড়ি-ঘর ভেঙে এখন তারা সরকারি রাস্তার ওপর। কয়েকদিন থেকে রাস্তার ওপরেই বসবাস করেছেন। এখন গ্রামের এক নিকট-আত্মীয়র একখণ্ড জমিতে ঘর তুলছেন।

সুখি বেগমের স্বামী আব্দুস সামাদ জানালেন, তিনি কৃষি কাজ করেই জীবন জীবিকা নির্বাহ করেন। কিন্তু সব আবাদি জমি এখন তিস্তার গর্ভে। কিভাবে সংসার চালাবেন, কিভাবে বেঁচে থাকবে সেটাও এখন অনিশ্চিত হয়ে পড়েছে। প্রতিবছর তিস্তার ভাঙনে বসতভিটা, আবাদি জমিসহ সবকছিু যেতে যেতে এখন আর কিছুই থাকেনি।

‘মোর নামটাই খালি সুখি বেগম কিন্তু মোর কপালোত কোনদিন সুখ নাই। খালি দুখখো আর দুখখো,’ তিনি জানান। ‘কয়দিন আগোত তাও হামার নিজের এ্যাকনা বাস্তুভিটা আছিল তাও এ্যালা নাই। মাইনসের জমিত ঘর তুলি থুইছি। মোর দুখখের শ্যাষ নাই। তিস্তা মোক সুখি হবার দিলে না,’ আক্ষেপ করে বললেন সুখি বেগম।

সুখি বেগমের মতো তিস্তাপাড়ের হাজার হাজার মানুষ এখন কাঁদছেন বসতভিটা, আবাদি জমি হারিয়ে। তারা ভূমিহীন নিঃস্ব হয়ে চরম দারিদ্রের সঙ্গে লড়াই করে বেঁচে আছেন মানবেতরভাবে।

মহিষখোঁচা ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান মোসাদ্দেক হোসেন চৌধুরী বলেন, ‘তিস্তা নদীর ভাঙনে আমাদের ইউনিয়নটি দিন দিন ছোট হয়ে আসছে। তিস্তাপাড়ের মানুষ এখন আর ত্রাণের জন্য আসেন না, তারা শুধু বাঁধ চায়। তিস্তার বামতীরে বাঁধ দেওয়া হলে হাজার হাজার পরিবার রক্ষা পাবে নদীভাঙন ও বন্যা থেকে।’ তখন তাদের জীবন-জীবিকা স্বচ্ছল হয়ে উঠবে বলেও মন্তব্য করেন তিনি।

Post a Comment

0 Comments