ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ে ফুল বিক্রি করা জিনিয়ার খোজ ছয় দিনেও পাওয়া যায়নি

 ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় শিক্ষার্থী কিংবা ক্যাম্পাসে যাদের আনাগোনা, জিনিয়ার মিষ্টি হাসির সঙ্গে পরিচিত তারা। বাবা নেই। ফুল বিক্রি করে মায়ের সংসারে অর্থের জোগান দিতো ৯ বছরের ছোট্ট জিনিয়া। টিএসসি এলাকায় খোলা আকাশের নিচেই তাদের বসবাস।



৬ দিন ধরে নিখোঁজ পথশিশু জিনিয়া। তাকে না পেয়ে দিশেহারা মা সেনুরা বেগম। প্রত্যক্ষদর্শীরা বলছেন, গেল মঙ্গলবার রাতে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের টিএসসি এলাকা থেকে অপরিচিত দুজন নারী জিনিয়াকে নিয়ে যায়। ঘটনাস্থলের সবগুলো সিসিটিভি ক্যামেরা ছিলো অকার্যকর। জিনিয়াকে খুঁজে পেতে সর্বোচ্চ চেষ্টা করা হচ্ছে বলে জানিয়েছে শাহবাগ থানা পুলিশ।

জিনিয়ার মা বলেন, দুইটা মহিলার সঙ্গে চটপটি খেয়েছে। পরে আমি ওকে বললাম, জিনিয়া তুমি মায়ের সব ফুল বিক্রি করবা। এর কিছুক্ষণ পর এসে আর তাকে পাই না।

জিনিয়ার মা বলেন, আমার আর কিছু দরকার নেই। মেয়েটাকে পেলে আমি ঢাকা ছেড়ে চলে যাব।

এর আগেও জিনিয়ার বড় বোন নিখোঁজ হয়েছিলো। ১১ বছর পর তাকে পাওয়া যায়। এই শহরের প্রতি তাই অভিমান জমেছে দুঃখী মায়ের।

শাহবাগ থানার ওসি মামুন অর রশিদ বলেন, মেয়েটাকে আমরা পাব। মেয়েটা যেকোন মূহূর্তে চলে আসবে। এছাড়া আমরা সব রকমের চেষ্টা চালিয়ে যাচ্ছি।

সোহরাওয়ার্দী উদ্যানের গেট ও টিএসসির আশপাশের প্রায় সবগুলো সিসিক্যামেরাই ছিলো অকার্যকর। জিনিয়া নিখোঁজের পর নতুন করে সিসিক্যামেরাই লাগানো হয়। পুলিশ বলছে, জিনিয়াকে খুজেঁ পেতে সর্বোচ্চ চেষ্টা করছেন তারা।

জিনিয়ার কোনো খোঁজ পেলে শাহবাগ থানা অথবা ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় কর্তৃপক্ষের সঙ্গে যোগাযোগের অনুরোধ করা হয়েছে।

Post a Comment

0 Comments