লজ্জা নয় জানুন এবং ট্যাবু ভাঙুন, স্বাস্থ্য সচেতন হোন, পাঁদ নিয়ে বিস্তারিত জানুন

 


১.প্রতিদিন গড়ে একজন মানুষ ১৪ বার পাদ দেয়

২.পাদের গতিবেগ - ৭ মাইল/ঘন্টা

৩.গড়ে একজন মানুষ দিনে আধা (১/২) লিটার পাদের গ্যাস তৈরী করে থাকেন

৪.ঠিক বের হয়ে আসার মুহুর্তে পাদের তাপমাত্রা হয় ৯৮.৬ ডিগ্রী ফারেনহাইট।বেরোনোর পর ঠান্ডা হয়ে যায় জুল-থমসন প্রভাবের কারনে। সরু ফুটো দিয়ে বেরিয়ে sudden Expansion এর কারনে।

৫.একজন ব্যাক্তি যদি ৬ বছর ৯ মাস একটানা পাদে তবে একটি পারমানবিক বোমার সমতুল্য শক্তির গ্যাস উৎপাদন হবে। যা একটি বড় শহরকে নিমিষেই শেষ করে দিতে পারে।

৬.নারী এবং পুরুষ সমান তালে পাদতে পারেন। তবে পুরুষের পাদের হার কিঞ্চিৎ বেশী।

৭.পাদ আটকে রাখা স্বাস্থ্যের জন্যে ভয়ানক ক্ষতির কারন হতে পারে। একটি পাদ দেওয়া মানে একটি সম্ভাব্য স্ট্রোকের হাত থেকে রক্ষা পাওয়া। তাই বেশী বেশী পাদুন।

৮.পাদ হলো দাহ্য বা ইংরেজীতে Flammable.

৯. মানুষ মৃত্যুর পরেও পাদে।মৃত্যুর ৩ ঘন্টা অব্দি পরিপাক নালীর উভয় নালী থেকে অবিরত গ্যাস বের হতে থাকে।

তাই ইচ্ছে মতো পাদুন আর সুস্থ থাকুন

নিজে পাদুন এবং অন্যকে পাদতে উৎসাহিত করুন

(উপরের লিখাটি আমেরিকান হেলথ জার্নাল ডক্টর'স ডায়েরী থেকে অনুবাদ করা হয়েছে)

অনুবাদকঃ ফাহাদ আল মুক্তাদির

Post a Comment

0 Comments