বাংলাদেশ ১৩ টি কয়লা বিদ্যুৎ কেন্দ্র পরিত্যাগ করে এলএনজি বিদ্যুৎ কেন্দ্র নির্মাণের পরিকল্পনা সরকারের

 বাংলাদেশ ১৩ টি কয়লা ভিত্তিক প্রকল্প পরিত্যাগ করে সেগুলো এলএনজি দ্বারা বাস্তবায়নের পরিকল্পনা করছে!


বিদ্যুতের নতুন মাস্টার প্লান অনুযায়ী, ২০৩০ সালে আমাদের বিদ্যুৎ উৎপাদন ক্ষমতা গিয়ে দাঁড়াবে প্রায় ৪০ হাজার মেগাওয়াট। যার মধ্যে ৩৫% বিদ্যুৎ কয়লা ভিত্তিক কেন্দ্র হতে উৎপাদন করা হবে। এই জন্য সরকার মোট ১৮ টি কয়লা ভিত্তিক বিদ্যুৎ কেন্দ্রের প্রকল্প হাতে নিয়েছিলো যেখান থেকে ১৩ হাজার মেগাওয়াট উৎপাদন করার কথা ছিলো।



কিন্তু এই ১৮ টি প্রকল্পের মধ্যে সরকার ৫ টি কয়লা ভিত্তিক প্রকল্প চলমান রাখবে। বাকি ১৩ টি কয়লা ভিত্তিক প্রকল্প বাতিল করার সিদ্ধান্ত নিচ্ছে সরকার। সরকারের বিদ্যুৎ বিভাগ চায়, বাকি প্রকল্পগুলো এলএনজি ভিত্তিক বিদ্যুৎ কেন্দ্র দ্বারা বাস্তবায়ন করা হোক। অর্থাৎ কয়লা থেকে বিদ্যুৎ উৎপাদন না করে ১৩টি এলএনজি ভিত্তিক বিদ্যুৎ প্রকল্প নির্মাণের পরিকল্পনা করছে সরকার।


বর্তমানে যে ৫টি কয়লা ভিত্তিক প্রকল্প চালু আছে সেগুলো হলোঃ


১. পায়রা তাপ বিদ্যুৎ কেন্দ্র ১৩২০ মেগাওয়াট।


২. মৈত্রি সুপার তাপ বিদ্যুৎ প্রকল্প- ১৩২০ মেগাওয়াট। নির্মাণ কাজ প্রায় শেষের দিকে।


৩. চট্টগ্রাম তাপ বিদ্যুৎ প্রকল্প- ১২২৪ মেগাওয়াট।


৪. বরিশাল তাপ বিদ্যুৎ প্রকল্প- ৩০৭ মেগাওয়াট।


৫. মাতারবাড়ি তাপ বিদ্যুৎ প্রকল্প- ১২০০ মেগাওয়াট


উপরোক্ত ৫ টি প্রকল্প রেখে ১৩ টি কয়লা ভিত্তিক প্রকল্প বাতিল করার অন্যতম কারণ বিনিয়োগের অভাব। এশীয় উন্নয়ন ব্যাংক এবং ওয়ার্ক ব্যাংকের মতো আন্তর্জাতিক ফিনান্সিয়ররা কয়লা ভিত্তিক প্রকল্পে অর্থায়ন করতে চায় না। এমনকি চীনা কিছু ব্যাংকও কয়লা ভিত্তিক প্রকল্পে অর্থায়ন থেকে দূরে চলে গেছে। এছাড়া দেশি-বিদেশি বিনিয়োগকারীরা ডার্টি এনার্জি কয়লা ভিত্তিক প্রকল্পে বিনিয়োগ করতে আকৃষ্ট নয়। তারা এলএনজি তে বিনিয়োগ করতে চাচ্ছে। তাই সরকার বাধ্য হচ্ছে কয়লাভিত্তিক প্রকল্প বাতিল করে সেগুলো এলএনজি দ্বারা বাস্তবায়ন করতে। প্রধানমন্ত্রীর অনুমোদন পেলেই ১৩ টি প্রকল্প এলএনজি দ্বারা বাস্তবায়ন করা হবে।


উল্লেখ্য, বাংলাদেশ প্রতিদিন ১ হাজার মিলিয়ন কিউবিট ফিট এনএনজি আমদানি করছে। এবং ২০৩০ সালের মধ্যে প্রতিদিন আমদানির ক্ষমতা ২ হাজার মিলিয়ন কিউবিক ফিট বাড়ানোর পরিকল্পনা রয়েছে। এছাড়া ইতোমধ্যে ৮৭৫০ মেগাওয়াট বিদ্যুৎ ক্ষমতা সম্পন্ন মোট পাঁচটি এলএনজি ভিত্তিক প্রকল্প পাইপলাইনে রয়েছে। যদি আরো ১৩ টি প্রকল্প এলএনজি দ্বারা বাস্তবায়িত হয় তবে সেখান থেকে আরো ৭৬২৯ মেগাওয়াট বিদ্যুৎ এলএনজি থেকে উৎপাদন করা হবে।

Post a Comment

0 Comments